আজকের দিন-তারিখ

  • বুধবার ( বিকাল ৩:০২ )
  • ২১ ফেব্রুয়ারি২০১৮
  • ৪ জমাদিউস-সানি১৪৩৯
  • ৯ ফাল্গুন১৪২৪ ( বসন্তকাল )

অনলাইনে আছেন


১ জন অতিথি      

»

সেরা ১০ জন

  • রাহাতুল ইসলাম (1980 পয়েন্ট)
  • Palash Da (1947 পয়েন্ট)
  • কানন (1884 পয়েন্ট)
  • রিয়াদ (1731 পয়েন্ট)
  • স্বল্প জ্ঞানী (1341 পয়েন্ট)
  • চৌধুরী রেজাউল হায়দার (1001 পয়েন্ট)
  • kamal6116 (911 পয়েন্ট)
  • ismailuae09 (900 পয়েন্ট)
  • রাকিব উদ্দিন চৌধুরী (860 পয়েন্ট)
  • আহমেদ জে. রাসেল (857 পয়েন্ট)

নতুন আসলেন যারা

;.
ডিসেম্বর ৩০, ২০১৭
;.
নভেম্বর ১৫, ২০১৭
;.
আগস্ট ১৪, ২০১৭
;.
আগস্ট ২, ২০১৭
;.
জুলাই ২১, ২০১৭

পর্ণ আসক্তি থেকে মুক্তির উপায়

বর্তমানে ইন্টারনেটের কারনে পর্ন এত সহজলভ্য এবং সস্তা যে পর্নের নিষিদ্ধ আকর্ষন অনেকটাই হারাতে বসেছে। বর্তমানে বাংলা চটি গল্প পড়ার জন্য কারোর আর বই কেনার প্রয়জন পড়ে না ইন্টারনেটে আছে চটির ভান্ডার। অশ্লীল সাহিত্য রচনা হচ্ছে সেই আদিম কাল থেকেই। নীল ছবি পর্নোগ্রাফি বা অশ্লীল সাহিত্য কোনটাই আধুনিক সভ্যতার আবিষ্কার নয়। বহু আগে থেকেই এদের অস্তিত্ব আছে। প্রস্তর যুগে বহু গুহাচিত্র বা ভাষ্কর্যে নগ্নতার ছাপ আছে ।

 

পর্ণ আসক্তি থেকে মুক্তি পেতে

যখন একজন মানুষ দীর্ঘদিন ধরে  চটি গল্প পড়ে বা পর্ন দেখে এবং উত্তেজিত হয়ে পড়ে, অথবা পর্ন দেখার সময় বা চটি পড়ার সময় হস্তমৈথুন করে, তখন তার ভার্চুয়াল জগত তার অনুভূতিকে সক্রিয় করে দেয়। ফলে তার জীবনের বাস্তব নারীর সাথে সে সন্তুষ্টির সাথে যৌন মিলন করতে পারে না। অন্য কথায়, চটি পড়া বা পর্ন দেখার মাধ্যমে ঘন ঘন হস্তমৈথুন তাকে যৌন সমস্যার দিকে নিয়ে যায়।

প্রথমেই মনস্থির করুন যে আপনি পর্ণ দেখা পুরোপুরি ছাড়বেন। এটা অনেক জরুরী। নিজের সাথে প্রমিজ করুন এবং চ্যালেঞ্জ তৈরি করুন যে আর দেখবেন না। কেবল মাত্র মন কে স্থির করতে পারলেই আপনি অর্ধেক এগিয়ে যাবেন নিঃসন্দেহে।

 

মোবাইলের মেমরি কার্ড, পিসি/ল্যাপটপ/ট্যাব থেকে যত পর্ণগ্রাফিক ছবি এবং ভিডিও আছে, ডিলিট করুন। কারন পর্ণ না দেখার ব্যাপারে মন স্থির করলেও হাতের কাছে যখন এগুলো পাবেন, দেখতে ইচ্ছে করবে। পিসি থেকে পর্ণ সাইট গুলো ব্লক করুন। পর্ণ সাইট ব্লক করার জন্য K9 নামে অসাধারণ একটি ফ্রি সফটওয়্যার আছে, ওটা ইন্সটল করে দেখতে পারেন। সফটওয়্যার টি কিভাবে ব্যবহার করবেন বুঝতে না পারলে How to use K9 web protection লিখে ইউটিউবে সার্চ দিলে প্রচুর টিউটোরিয়াল পেয়ে যাবেন। পাশাপাশি বুকমার্ক এবং ব্রাউজারের হিস্ট্রি গুলো ডিলিট করুন। কারন আপনি কোন ওয়েবসাইটে যাচ্ছেন, কি কি সার্চ করছেন তা গুগল মনে রাখে। ফলে পরবর্তীতে সার্চ করার সময় গুগল গায়ে মানেনা আপনি মোড়ল টাইপ মাতব্বরি করতে থাকে।  গুগল সার্চের Safe search অপশন টি এনাবল রাখুন।

 

 

ইউটিউবে বেশি সময় কাটাবেন না। যেই ভিডিও টা দেখা প্রয়োজন সম্ভব হলে শুধু সেটা দেখেই বেরিয়ে আসুন। কারন ইউটিউবে পর্ন থাকেনা ঠিকই, তবে সফট পর্ন থাকে। অনেক সময় কোনো ভিডিও দেখার সময় ডান পাশের সাইডবারে অন্যান্য ভিডিও’র থাম্বনেইলের সাথে এসব সফট পর্ণের ভিডিও গুলোও চলে আসে। আর মানব মন যেহেতু প্রকৃতিগতভাবেই কৌতূহলী, তাই স্বাভাবিকভাবেই ওদিকে নজর বেশি যায় এবং মাউসের পয়েন্টার ও মনের চাহিদা বুঝে ওদিকে ঘুরে যায়। আরেকটি কাজ ও করতে পারেন, ইউটিউবের Safe ফিল্টার টি অন করে রাখতে পারেন। এতে এ্যাডাল্ট ভিডিও গুলো দেখাবেনা।

 

 

 

যেহেতু পর্ণ দেখা ছাড়তে চাচ্ছেন, সো ঘরে একা একা কম্পিউটার/ল্যাপটপ/ট্যাব বা মোবাইলে সময় কাটানোর চেয়ে মন কে অন্য দিকে ডাইভার্ট করার জন্য নতুন এক বা একাধিক হবি তৈরি করুন এবং সে হবি নিয়ে মেতে উঠুন। যখন ই পর্ণ দেখতে মন চাইবে, সাথে সাথে উঠে পড়ুন এবং সেই হবি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ুন। আমি জানি এটা কঠিন, কিন্তু অসম্ভব নয়। প্রথম দিকে অনেক কঠিন লাগলেও ধীরে ধীরে সহজ হয়ে আসবে। হবি হতে পারে বডিবিল্ডিং এর জন্য জীমে জয়েন করা, গিটার, কবিতা আবৃত্তি কিংবা গান শেখা, ফটোগ্রাফি কিংবা পেইন্টিং, বই পড়া, গাড়ি চালানো শেখা, খেলাধুলা কিংবা সাতার শেখা, নতুন নতুন বন্ধু তৈরি করা… মোট কথা, নিজেকে ব্যস্ত রাখুন।

 

 

 

 

পিসি বা ল্যাপটপ রুমের এমন একটা পজিশনে রেখে ইউজ করুন, যেন সেটা রুমে ঢুকলে সবার দৃষ্টিগোচর হয়। বাবা-মারা তাদের সন্তানদের কম্পিউটার টেবিল ঘরে ঢুকলে সহজেই চোখে পড়ে এবং মনিটর করা যায় এমন অবস্থানে রাখুন। সম্ভব হলে ল্যাপটপ না কিনে টিনএজ বয়সী সন্তান কে কম্পিউটার কিনে দিন। কারন ল্যাপটপ কিনে দিলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বিছানাতে নিয়ে কাজ করার সম্ভাবনা বেশি। ফলে সে আদৌ কাজ করছে নাকি পর্ণ সাইট ব্রাউজ করছে সেটা মনিটর করাটা আপনার জন্য অসম্ভব হবে।

 

 

 

রুমের দরজা খোলা রেখে কম্পিউটার ব্যবহার করুন। এটা বেশ জরুরী। রুমের দরজা বন্ধ করে কম্পিউটার বা ল্যাপটপে কাজ করার সময় হঠাত করেই মনের মধ্যে পর্ণ ওয়েবসাইট ব্রাউজের চিন্তা আসতে পারে, অথবা কোনো ওয়েবসাইট ব্রাউজের সময় পর্ণ এ্যাডভার্টাইজমেন্ট দেখেও ইচ্ছে করতে পারে। রুমে প্রাইভেসি থাকলে সেটা আপনার জন্য সহজ হয়ে যাবে। সেজন্য সম্ভব হলে রুমের দরজা খোলা রেখেই কম্পিউটার ব্যবহার করুন। পর্ণের সংস্পর্শে যাওয়া টা নিজের জন্য কঠিন করে তুলুন। কারন ইচ্ছে হওয়া মাত্রই পর্ণ দেখার সুবিধা আপনার থাকলে আপনি তা নিয়মিতই দেখবেন বলা চলে। তাই পর্ণ দেখা টা যদি আপনার জন্য কঠিন হয়, সেটা আপনার জন্য ভাল। 

 

 

 

যদি মেডিটেশন পারেন, দিনের যেকোনো একটা নির্দিষ্ট সময়ে মেডিটেশন করুন। না পারলে শিখতে পারেন। মেডিটেশন শেখার জন্য ইন্টারনেটে প্রচুর কনটেন্ট পাবেন, এবং বাংলাতেই পাবেন। কোয়ান্টাম মেথডের ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন। না পেলে মন্তব্যে বললে লিঙ্ক দিবো। নিয়মিত মেডিটেশন করলে আপনার মন শান্ত থাকবে এবং মনের উপরে নিজের নিয়ন্ত্রণ থাকবে। মন আপনাকে চালাবেনা, আপনিই মন কে চালাবেন।

 

 

 

নামাজ পড়ার অভ্যাস থাকলে ভাল, নয়তো নামাজে মন দিতে পারেন, এতেও মন শান্ত এবং পরিশুদ্ধ থাকবে। আপনি যে ধর্মের অনুসারীই হোন না কেন, নিজ নিজ ধর্মীয় অনুশাসন এবং ধর্মীয় উপাসনাতে মনোযোগ দিলে মনের পরিশুদ্ধি এবং পবিত্রতা ফিরে আসবে। যারা সত্যিকার অর্থে ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলে, তাদের জন্য পর্ণ আসক্তি থেকে দূরে থাকা টা কোনো ব্যাপার ই না।

 

 

 

পর্ণ দেখার প্রতি কোন কোন জিনিস গুলো আপনার মনকে ট্রিগার করে, সেগুলো মার্ক করুন। সেটা হতে পারে কোনো ভিডিও গান, পিসিতে থাকা নাইলা নাইম সানি লিওন কিংবা অন্য কোনো মডেলের ছবি যা দেখার সাথে সাথে আপনার ভেতরে লাস্টি মুড তৈরি করছে। মার্ক করার পর সেগুলো পিসি থেকে ডিলিট করুন এবং এই টাইপ যতগুলো জিনিস আছে যা আপনাকে পর্ণ দেখার প্রতি ট্রিগার হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে সেগুলো থেকে দূরে থাকুন। আমি জানি পর্ণ থেকে দূরে থাকার জন্য অনেকেই এই পোস্ট টি পড়বেন, তারপর আবারো আগের জায়গাতে ফেরত যাবেন। কারন এই ছোট ছোট ট্রিগার গুলো থেকে দূরে না থাকতে পারা। হয়তো ভাবছেন, আরে দূর! এসব ছোট খাটো ব্যাপার নিয়ে ভাবলে চলে। কিন্তু আসল কথা হল, এসব ছোট খাটো ব্যাপার থেকেই বড় বড় ব্যাপারগুলোর সূত্রপাত হয়। তাই এই ট্রিগারগুলো ফাইন্ডআউট করে সেগুলো থেকে যদি দূরে থাকতে পারেন, সেটা আপনার জন্য মঙ্গল বয়ে আনবে।

 

মনে রাখুন, পর্ণ আসক্তি থেকে দূরে থাকাটা কোনো জাদুর চেরাগের মত নয় যে ইচ্ছে করলাম ব্যস হয়ে গেলো। এই পোস্ট পড়ার পর আজ কম্পিউটার বা মোবাইলের মেমরি কার্ড থেকে সব পর্ণ ডিলিট করলেন, গুগলের সেফ সার্চ অন করলেন, পর্ণ ওয়েবসাইট ব্লকের জন্য সফটওয়্যার ইন্সটল করলেন… ব্যস কাজ কিন্তু এখানেই শেষ নয়! ডে বাই ডে আপনাকে এটার জন্য স্ট্রাগল করতে হবে। নিজের সাথে ফাইট করতে হবে। মাঝেমাঝে হয়তো ব্যর্থ হবেন, কিন্তু প্লীজ দমে যাবেন না বা হাল ছাড়বেন না। 

 

একজন লেখকের জন্য পাঠকের মন্তব্য অনেক গুরুত্বপুর্ন। আশা করি আপনারা এই লেখাটি নিয়ে আপনাদের মতামত জানাবেন।

পোষ্টটি লিখেছেন: আলোকিত আধারে

( 3 বছর 8 মাস 7 দিন ধরে ফেনী ব্লগে আছেন।)

আলোকিত আধারে এই ব্লগে 2 টি পোষ্ট লিখেছেন .

আমি নিরপেক্ষ নই, সত্যের পক্ষে ...........

FavoriteLoadingপ্রিয়তে নিন
5.00 avg. rating (96% score) - 1 vote

মন্তব্য করুন